ইনফোপ্রেনিউর : কী কেন কিভাবে?

0
59
ইনফোপ্রেনিউর : কী কেন কিভাবে?

কয়েক দশক আগে, তথ্য শিল্পে স্ব-কর্মসংস্থান বেশ কঠিন ছিল। কোনো প্রকাশনা শুরু করা ছিল দুঃসাধ্য এবং ব্যয়বহুল। ব্লগিং ছিল না, পডকাস্ট তো স্বপ্নেও দেখেনি কেউ। বেশিরভাগ উদ্যোক্তা বা প্রফেশনালদের নিজ পেশার জ্ঞান শেয়ার করার তেমন কোনো মাধ্যম ছিল না।

তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগে ওয়েবসাইটের সহযোগিতায় এখন এটা সবার হাতের নাগালে। এখন আপনি চাইলেই হতে পারেন একজন ইনফোপ্রেনিউর।

ইনফোপ্রেনিউর কী?

সহজ কথায়, একজন তথ্যউদ্যোক্তা বা  ইনফোপ্রেনিউর হলেন একজন পেশাজীবী, যিনি একাধিক উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ করে ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা আলোকে ভোক্তাদের জন্য একটি অনন্য প্যাকেজ তৈরি করেন। কেউ কেউ আবার শব্দটিকে ইনফোপ্রেনার বলেও উচ্চারণ করেন।

যদিও ইন্টারনেট সেই প্রক্রিয়াটিকে ব্যাপকভাবে সহজ করেছে, তবে শব্দটি আসলে বর্তমান ডিজিটাল যুগের অনেক আগেই ব্যবহার করেছেন একজন লেখক। হ্যারল্ড “স্কিপ” ওয়েইটজেন ১৯৮০-এর দশকে “ইনফোপ্রেনিউরস: ডাটা ইনটু ডলারস” বইতে একজন তথ্যউদ্যোক্তা বা  ইনফোপ্রেনিউর বলতে কী বোঝায় তার ব্যাখ্যায় এই শব্দটি তৈরি করেছিলেন।

বিংশ শতাব্দীতে, তথ্য-উদ্যোক্তারা স্ব-প্রকাশিত বই, অডিও ক্যাসেট এবং সিডি-রমের মতো মাধ্যমগুলির মাধ্যমে তাদের মূল্যবান তথ্য ও  পরামর্শ শেয়ার করা শুরু করেন। ব্যক্তিগত একটি ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠার পর, একজন তথ্যউদ্যোক্তা নিয়মিত বিভিন্ন মাধ্যমে তার অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও  পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে প্যাসিভ আয় করে টেকসই স্ব-কর্মসংস্থান তৈরি করেন।

বর্তমানে দ্রুতি সম্প্রসারনশীল বিভিন্ন মাধ্যম, তথা ইন্টারনেট ও সোশ্যাল মিডিয়ার আবির্ভাব এবং প্রযুক্তির অগ্রগতি সবকিছুই তথ্যউদ্যোক্তা বা  ইনফোপ্রেনিউর হিসেবে আত্মপ্রকাশকে সহজ করে তুলেছে।

ব্লগ, ইউটিউব এবং ফেসবুকের মতো সাইটে যে কেউ তথ্য শেয়ার করে নিতে পারে এবং কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ করতে পারে। একই সাথে সেখানে গুগল অ্যাডসেন্স ও ফেসবুক বিজ্ঞাপনসহ বিভিন্ন বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ্যমে উপার্জনের মাধ্যমে আত্মকর্মসংস্থান তৈরি করতে পারেন।

যাদিও এসব তথ্যের ওয়েব-প্রকাশনা কিংবা বিতরণের মাধ্যমে তথ্যউদ্যোক্তা বা  ইনফোপ্রেনিউর হিসেবে আপনার সফলতার গ্যারান্টি দেয়া যায় না। একজন সফল তথ্যউদ্যোক্তা হওয়ার জন্য, আপনাকে প্রচুর প্রচেষ্টা এবং টেকনিক অনুশীলন করতে হবে। হাজার হাজার মানুষের ভিড়ে নিজের স্বতন্ত্র অবস্থান তৈরি ও নিত্য-নতুন কৌশলের মাধ্যমে নিজস্ব পণ্য বা সেবা বিক্রির উপায় আপনাকেই খুঁজে নিতে হবে।

ইনফোপ্রেনিউরশিপের সংজ্ঞা

ইনফোপ্রেনিউরশিপ হলো তথ্য বিকাশ এবং বিক্রি করার অনুশীলন। ইনফোপ্রেনিউরশিপ হলো এক ধরনের উদ্যোগ যা বিশেষভাবে আপনার জ্ঞান ও দক্ষতাকে আর্থিক মূল্যমানে রূপান্তর করে। ইনফোপ্রেনিউরশিপের জন্য কোনো আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ বা অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয় না – যে কেউ সঠিক সরঞ্জামের সাহায্যে একজন তথ্য-উদ্যোক্তা হতে পারেন।

একজন ইনফোপ্রেনিউর কী কাজ করেন?

একজন ইনফ্রোপ্রেনিউরকে বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে হয়। অর্থ্যাৎ একজন তত্য-উদ্যোক্তা তথ্য সংগ্রহ করে তা গোছালোভাবে বিক্রি ও বাজারজাত করেন। এই পুরো প্রক্রিয়ায় তাকে যথেষ্ট দক্ষ হতে হয়।

একজন ইনফ্রোপ্রেনিউরকে যেসব কাজ করতে হয় তার মধ্যে রয়েছে-

  • শিক্ষামূলক কনটেন্ট লেখা বা চিত্রায়ন
  • সবসময় অডিয়েন্সের প্রয়োজন বুঝে তথ্য-সামগ্রী তৈরি করা
  • শিক্ষামূলক রিসোর্স যেমন- টেমপ্লেট, ওয়ার্কবুক ও কুইজ প্রস্তুত করা
  • মার্কেটিং কনটেন্ট তৈরি তথা সামাজিক মাধ্যমের জন্য পোস্ট ও ইমেইল মার্কেটিংক্যাম্পেইন
  • গ্রাহকদের সাথে ফোনে কথা বলা
  • প্রশাসনিক দায়িত্ব; যেমন- কোর্সে ভর্তি, কনটেন্ট আপলোড
  • ওয়েবসাইট ডিজাইন ও ব্যবস্থাপনা
  • কর্মশালার আয়োজন
  • গেস্ট ব্লগিং, পডকাস্ট ও লাইভ ইভেন্ট

একজন ইনফোপ্রেনিউর কী কাজ করবে তা নির্ভর করে তার নিশ, ব্যবসায়ের আকৃতি ও প্রকৃতির উপর। একজন উদ্যোক্তার মতো আপনাকেও ব্যবসায়ের বৃদ্ধি ও সম্প্রসারণে বিভিন্ন ভুমিকা পালন করতে হবে।

তথ্য-উদ্যোক্তা বা ইনফোপ্রেনিউর কেন হবেন?

অন্যান্য আত্ম কর্মসংস্থানের মতো একজন ইনফোপ্রেনিউর-এর জন্যও অনেক সুযোগ সুবিধা আছে। আপনি কোথায় কিভাবে নিজেকে কাজে লাগাবেন সেটা নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। আপনার সত্যিকারের আগ্রহ আছে এমরন কাজের সাথে নিজেকে যুক্ত রাখতে পারেন। অন্যান্য উদ্যোগের চেয়ে এক্ষেত্রে রিস্ক বা ঝুঁকি কম থাকে।

ইনফোপ্রেনিউর
একজন ইনফোপ্রেনিউর হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া খুব বেশি কঠিন নয়। তথ্য-উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে একটি ব্লগ বা ইউটিউব চ্যানেল চালু করা।

একজন ইনফোপ্রেনিউর হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া খুব বেশি কঠিন নয়। তথ্য-উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে একটি ব্লগ বা ইউটিউব চ্যানেল চালু করা। ইউটিবে চ্যানেল খোলা ফ্রি। আর ব্লগ চালু করতে হলে ডোমেইন ও হোস্টিং লাগবে সেটা খুবই সহজ-সাধ্য। এছাড়া ইবুক তৈরি করতেও দরকার হবে শুধু সময়। নিজের প্রকাশিত অনলাইন বই ও ম্যাগাজিন বিক্রি করাও অনেক সহজ। অ্যামাজনের মতো বিভিন্ন প্লাটফরমে সেটা খুবই অল্প খরচে করা সম্ভব।

দেশেও রকমারিসহ বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে সাথে কাজ করতে পারেন। তারাই আপনার হয়ে বিক্রির দায়িত্ব পালন করবে।  

এমনকি অন্যান্য স্টার্টআপগুলোর মতো তথ্যউদ্যোক্তাকে অনেক টাকা বিনিয়োগ করতে হয় না। বরং একজন ইনফোপ্রেনিউর অল্প সময়ের মধ্যেই রেভিনিউর মাধ্যমে  তার বিনিয়োগ তুলে আনতে পারেন। 

ইনফোপ্রেনিউর হিসেবে আপনি কি সফল হতে পারবেন?

আপনি যদি মনে করেন কোনো একটি বিষয়ের তথ্যের জন্য আপনি একটি নির্ভরযোগ্য উৎস হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার প্রয়োজনীয় জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ও সংকল্প আপনার আছে; তবে আপনি একজন ইনফোপ্রেনিউর বা তথ্য-উদ্যোক্তা হিসেবে আত্মকর্মসংস্থানের বিষয়ে আপনি চিন্তা করতে পারেন।

যেহেতু আপনার ইন্টারনেট অ্যাকসেস আছে, সেক্ষেত্রে আপনি আর কোনো খরচ ছাড়াই ভার্চুয়ালি আপনার তথ্য প্রকাশ করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার তেমন কিছু হারানোর নেই। বরং অনেক কিছুই পাওয়ার মতো আছে।

সাফল্যের স্বাদ পেতে আপনাকে স্বতন্ত্র বা ইউনিক কিছু নিয়ে আসতে হবে। প্রতিমাসে, ব্লগাররা শুধু  ওয়ার্ডপ্রেসে প্রায় ৭৩.৯ মিলিয়ন পোস্ট করেন। এবং আক্ষরিক অর্থে আমাজনে কয়েক মিলিয়ন ইবুক রয়েছে। বাংলাদেশেও রয়েছে হাজার হাজার বইয়ের লেখক। আপনি যদি তাদের থেকে আলাদা হতে চান তবে আপনাকে বাজার গবেষণা করতে হবে এবং আপনার তৈরি সামগ্রীকে গ্রাহকের কাছে পৌঁছাতে নিজস্ব সরবরাহ চ্যানেল তৈরি করতে হবে।  

ইনফোপ্রেনিউর বা তথ্য-উদ্যোক্তাদের জন্য সাফল্যের রাস্তা সহজ নয়। তবে এর অর্থ এই নয় যে আপনি এটি অর্জন করতে পারবেন না।

বিজনেসম্যান, এন্ট্রোপ্রেনিউর ও ইনফোপ্রেনিউর

বিজনেসম্যান, এন্ট্রোপ্রেনিউর ও ইনফোপ্রেনিউর
বিজনেসম্যান, এন্ট্রোপ্রেনিউর ও ইনফোপ্রেনিউর

ছবিতে প্রথম ধাপে একজন ব্যবসায়ী (Trader) দেড় ডলারে কলা কিনে দুই ডলারে বিক্রি করে দেন এবং প্রতি কলায় আধ ডলার মুনাফা করছেন। এ প্রক্রিয়ায় দেখা যায় ব্যবসায়ী সংক্ষিপ্ত সময়ে, সংক্ষিপ্ত পন্থায় স্বল্প লাভ আহরণ করছেন। 

এখানে তার লাভ-ক্ষতির ঝুঁকি কিংবা পণ্য অক্ষত রাখা বা নিরাপত্তার ঝুঁকি রয়েছে। আরো দেখা যায় এ প্রক্রিয়ায় তার নিজ আয়ের সংস্থান হলেও অন্যান্যদের জন্য কর্মসংস্থান তৈরী হয়নি। 

দ্বিতীয় ধাপে দেখা যায় একজন উদ্যোক্তা (Entrepreneur) দেড় ডলারের কলা কিনে তিনি তার মেধা ও শ্রম ব্যবহার করে কলার জুস তৈরী করে পাঁচ ডলারে বিক্রি করছেন। এ প্রক্রিয়ায় আয়ের পরিমাণ বেশি হলেও উৎপাদন ঝুঁকি, বিপনন ঝুঁকি ও নিরাপত্তা ঝুঁকি বৃদ্ধি পেয়েছে। 

একজন উদ্যোক্তা নিজ আয়ের উৎস সৃষ্টির পাশাপাশি আরো অনেকের জন্য কর্ম-সংস্থান বা বাজার সৃষ্টি করে, যা একটি দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখতে সক্ষম হয়। 

ছবির তৃতীয় ধাপে একজন ইনফোপ্রেনিউরের ক্ষেত্রে দেখা যায়, কলা থেকে জুস বানানোর প্রযুক্তি এবং বাজারজাতকরণের কৌশলটিকে যথার্থভাবে গবেষণালব্দ জ্ঞান দিয়ে সংগঠিত করে প্রশিক্ষক ও পরামর্শক হিসেবে একটি ইনস্টিটিউশানের মাধ্যমে আরো অধিক লোকের কাছে ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়। 

এ প্রক্রিয়ায় ব্যবসায়িক ঝুঁকি কমে যায়, শারীরিক শ্রমের চেয়ে মেধার ব্যবহার বেড়ে যায় এবং লাভের পরিমাণও অত্যন্ত বেড়ে যায়। এটি মুলত মেধাভিত্তিক কর্মসংস্থান বা ব্যবসা। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ব্যাপক হারে কর্ম-সংস্থান তৈরির সুযোগ থাকে। 

পণ্যের বহুমুখি বাজার সৃষ্টির মাধ্যমে কর্মহীন বেকারদের কর্মসংস্থান এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য অর্থলগ্নির সৃষ্টি করে। যেমন- একজন বেকার একটি যথার্থ প্রতিষ্ঠানের আওতায় কলা থেকে জুস তৈরির প্রযুক্তি এবং ব্যবসায়িক কৌশল শিখে নিলেন এবং ওই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই বিভিন্ন ব্যাংক, এনজিও এর সাথে সংযুক্ত হয়ে নিজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে পরিবারের হাল ধরতে পারে। 

অন্যদিকে এরকম শত শত প্রশিক্ষিত যুবক বা বেকারদের ব্যবসায়িক উদ্যোগে অর্থলগ্নি করে তাদের বাজার সম্প্রসারণ করতে সক্ষম হয়। পাশাপাশি এই প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত মেশিনারিজ, দোকানঘরের মালিকদের বাজারও সম্প্রসারিত হয়। 

সুতরাং এই পর্যায়ে স্পস্টভাবে বুঝা যায় মেধাভিত্তিক উদ্যোগ ইনফোপ্রেনিউরশিপে (Infopreneurship) ব্যবসায়িক ঝুঁকি কম, লাভ বেশি এবং দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভুমিকাও অত্যাধিক। 

ইনফোপ্রেনিউরশিপের মাধ্যমে আপনি মানুষকে শিক্ষিত করা শুরু করবেন এবং লোকেরা যথার্থ ও কার্যকর শিক্ষার জন্য আপনাকে টাকা দিতে কখনও আপত্তি করবে না- এটি অত্যন্ত পরিক্ষিত বিষয়। এজন্য দেখা যায় হাজার হাজার বিজ্ঞাপনের মধ্যেও সব বিজ্ঞাপন বাদ দিয়ে মানুষ নিভৃতে বসে থাকা সুনামধারী প্রতিষ্ঠানে ধর্না দেয়। কারণ একজন সন্তুষ্ট ভোক্তা বা গ্রাহক লক্ষ বিজ্ঞাপনের চেয়ে বেশি কার্যকর। এজন্য ইনফোপ্রেনিউরশিপে কোনো ধরণের কৃত্রিমতা, শঠতা বা নকল কার্যক্রম বাজারে টিকে থাকা সম্ভব নয়। বলা যায় এই সেক্টরটি অত্যন্ত দূরদর্শীতা, সৃজনশীল ও মেধাসম্পন্নদের জন্য সংরক্ষিত।

তথ্যসূত্র :
১. স্মলবিজনেস ট্রেন্ডস
২. লিংকডইন
৩. থিংকফিক

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here