মননশীলতা: মস্তিষ্ক রিসেট করার শক্তিশালী উপায়

মননশীলতা: মস্তিষ্ক রিসেট করার শক্তিশালী উপায়

মননশীলতা বা Mindfulness আপনার মস্তিষ্ক পুনরায় সেট করার একটি সহজ, কিন্তু শক্তিশালী উপায়। কিন্তু, মননশীলতা ঠিক কী জিনিস?

আপনি একটি কম্পিউটারে কাজ করার কথা চিন্তা করুন। কখনো কি আপনার সাথে এমন হয়েছে যে, কম্পিউটারটি হ্যাং হয়ে যাচ্ছে। কিংবা ধীর গতিতে চলছে বা ঠিকভাবে কাজ করছে না? আপনি হয়তো দেখেছেন যে, কম্পিউটার রিবুট করা এই সমস্যাগুলির সমাধানে একটি বিশাল ভুমিকা রাখে। কেন এমনটা হয়, জানেন কি?

আপনি যখন একটি কম্পিউটার রিবুট করেন, তখন সেটির মেমরি স্টোরগুলি সাফ হয়ে যায়। সম্প্রতি চালানো প্রসেসগুলো শেষ হয়ে পুনরায় চালু হয়। মননশীলতা আপনার মস্তিষ্কের জন্য একই কাজ করতে পারে।

আপনার মস্তিষ্ককে ধীরগতির করতে যেসব তীব্র চিন্তাভাবনা ও বিষয়গুলো কাজ করে, সেগুলোকে বন্ধ করে পুনরায় চালু করতে সাহায্য করে মননশীলতার অনুশীলন। এটি নিউরন পথের সংকেতগুলি পরিষ্কার করে এবং কার্যকরভাবে মস্তিষ্ককে পুনরায় সেট করে।

আমি কিভাবে মননশীলতা চর্চা করতে পারি?

মননশীলতা একটি সহজ ও শিথিল প্রক্রিয়া। এটি চর্চার জন্য এই পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন-

  • আরাম করে বসুন।
  • চোখ বন্ধ করুন।
  • ৫-১০ বার গভীর শ্বাস নিন (যত ধীরে, তত ভাল)। অন্যান্য চিন্তাভাবনা মাথায় এলে সেগুলোকে পাশে ঠেলে প্রতিটি শ্বাসের দিকে গভীর মনোযোগ দিন।
  • আরামদায়কভাবে শ্বাস নেওয়া চালিয়ে যান এবং আপনার ইন্দ্রিয়গুলি কী অনুভব করছে সেদিকে মনোযোগ দিন।

আপনি কি শব্দ শুনতে পাচ্ছেন? আপনি কি আপনার ত্বকে একটি বাতাস অনুভব করেন? কিসের গন্ধ পাচ্ছেন? আপনি কি বন্ধ চোখ দিয়ে আলো দেখতে পান; আলো কি পরিবর্তনশীল বা স্থির? এই মুহূর্তে আপনি যা অনুভব করছেন তার উপর আপনার ফোকাস রাখার চেষ্টা করুন। আপনি যদি অতীত বা ভবিষ্যতের ঘটনা সম্পর্কে ভাবতে শুরু করেন তবে থামুন এবং আপনার ইন্দ্রিয়ের দিকে আপনার ফোকাস পুনর্নির্দেশ করুন।

মননশীলতা অনুশীলনে কতক্ষণ সময় লাগবে?

উপরের ধাপ ৪ -এ উপকার পেতে অন্তত ৬০ সেকেন্ডের মতো ছোট হতে পারে। তবে দীর্ঘ সময় করলে আরও কার্যকর হবে। আপনি যদি প্রতিটি সেশনে ৩-৫ মিনিটের মতো মননশীলতার অনুশীলন করতে পারেন, তা একটি স্কুল বা অফিসে চর্চার জন্য আদর্শ। (দ্রষ্টব্য: আপনার উদ্দেশ্য সম্পর্কে শিক্ষক/তত্ত্বাবধায়কদের আগে থেকে জানিয়ে রাখা উচিত)

যাইহোক, আপনি যদি বাড়িতে থাকেন এবং ১০-২০ মিনিটের একটি সেশন করতে পারেন, তবে এটি আরও ভালো হবে!

আপনি কি মাইন্ডফুলনেস “ভুল” করতে পারেন?

উত্তর হচ্ছে- না। মননশীলতা অনুশীলন করার কোনো “ভুল উপায়” নেই। কিন্তু, এটার জন্য প্রচেষ্টা লাগে। মননশীলতার সাথে শুরু করার সময়, আপনি সম্ভবত দেখতে পাবেন যে আপনি ক্রমাগত ভিন্ন চিন্তায় বিচরণ করছেন। যখনই এটি ঘটবে, সেই মুহূর্তে আপনার ইন্দ্রিয়গুলি কী অনুভব করছে, সেদিকে নিজেকে ফোকাস বা পুনর্নির্দেশ করুন। আপনি যত বেশি অনুশীলন করবেন, তত সহজে আপনি এটি করতে পারবেন।

মননশীলতার উপকারিতা

মননশীলতা চর্চা বা অনুশীলনের অনেক সুবিধা বা উপকারিতা রয়েছে। যেমন-

  • উদ্বেগ হ্রাস
  • মানসিক চাপ হ্রাস
  • বিষণ্নতা হ্রাস
  • দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা থেকে মুক্তি
  • মেজাজের উন্নতি
  • কাজের প্রতি মনোযোগ/ফোকাস বৃদ্ধি
  • সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতি

মাইন্ডফুলনেস আক্ষরিকভাবে নিউরোপ্লাস্টিসিটি নামক একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আমাদের মস্তিষ্ককে পরিবর্তন করে। এটি মস্তিষ্কের নিজেকে পুনরায় চালিত করার ক্ষমতা।

8 সপ্তাহ ধরে যারা প্রতিদিন মাইন্ডফুলনেস অনুশীলন করেন, তাদের এমআরআই ব্রেইন স্ক্যানে মস্তিষ্কে ধূসর পদার্থের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি দেখা গেছে। এই একই লোকেরা তাদের আত্ম-সচেতনতা, মনোযোগ, সহানুভূতি ও সুস্থতার স্তরে ইতিবাচক উন্নতির কথাও জানিয়েছে।

প্রথমে, আপনার কাছে এটিকে কিছুটা হতাশাজনক, এমনকি বিরক্তিকর মনে হলেও হাল ছেড়ে দেবেন না! গবেষণায় দেখা গেছে যে, মানুষ যখন মননশীলতার অনুশীলন শুরু করে তখন কিছু সমস্যা দেখা দিলেও সময়ের সাথে সাথে সবচেয়ে অনেক বেশি উপকার পেতে শুরু করে।

নামাজ ও মাইন্ডফুলনেস চর্চা

মুসলমানদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে মাইন্ডফুলনেসের বড় চর্চা হতে পারে। তবে শর্ত হচ্ছে- সঠিকভাবে আল্লাহকে হাজির নাজির জেনে নামাজ পড়তে হবে।  যদিও এটাই নামাজের নিয়ম। নামাজে বসে চিন্তাকে শুধুমাত্র নামাজে স্থির রাখতে চেষ্টা করতে হয়। কোনোভাবে অন্যদিকে মন চলে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে নামাজে ফিরিয়ে আনতে হয়। তাই সঠিকভাবে পাঁচবার সালাত আদায় করলে, তাতে মাইন্ডফুলনেস বা মননশীলতা চর্চার সব উপকারিতা অর্জন করা সম্ভব হবে ইনশাআল্লাহ।

তথ্যসূত্র: selskills.com

আরো পড়ুন:�

 

ক্যারিয়ার, ট্রেনিং ও স্কলারশিপ সম্পর্কে
exclusive তথ্য পেতে ফেসবুক গ্রুপে
জয়েন করুন-

Career Intelligence | My Career Partner

Scroll to Top