কর্মক্ষেত্রে মেনে চলুন নিয়ম-নীতি

0
562

চাকরি অথবা ব্যবসা যেটাই শুরু করুন না কেন, আপনাকে কর্মক্ষেত্রের মৌলিক কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানভেদে অফিসের নিয়ম-নীতি কিছুটা ভিন্ন হতে পারে । তবে মূল বিষয়গুলো অনেকটা একই ধরনের। কর্মক্ষেত্রে আপনাকে এগিয়ে রাখতে ও নিজের অবস্থান সৃষ্টি করতে মেনে চলুন নিম্নলিখিত বিষয়গুলো।

মার্জিত পোশাক ব্যবহার করুন
মার্জিত পোশাক মানুষের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি করে। তাই কর্মক্ষেত্রে পোশাকের ব্যাপারে সচেতন হোন। আপনার অফিস ইউনিফর্ম যেমনই হোক, সেটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন। রুচিশীল মানানসই ড্রেস পরিধান করুন। মনে রাখবেন, কর্মক্ষেত্রে ক্ষেত্রে সাধারণ চাল-চলনকে ভালো গুণ বিবেচনা করা হয়। আপনার পোশাকই বলে দেবে কাজের প্রতি আপনি কতটুকু দায়িত্বশীল।

সহমর্মিতা ও আন্তরিকতা কাজে লাগান
অন্যের সাথে কাজ করার ক্ষেত্রে আপনার আন্তরিকতা ও সহমর্মিতা কাজে লাগান। মনে রাখবেন, সবার প্রতি সবার একটা প্রত্যাশা থাকে। সেক্ষেত্রে নিজেকে সহানুভূতিশীল হিসেবে তুলে ধরুন। কর্মীদের মধ্যে নিজেকে কখনো দায়িত্বশীল ও তদারককারি ভাববেন না। কথোপকথনে নম্র ও মার্জিত ভাষা ব্যবহার করুন। বিশেষত টেলিফোনে কথা বলার ক্ষেত্রে।

কাজের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হোন
কোনো চাকরিতে আপনাকে নিয়োগ করার অর্থ হলো নির্দিষ্ট কিছু কাজ ও দায়-দায়িত্ব আপনার ওপর অর্পণ করা। যদি আপনার অবহেলা অথবা দায়িত্বহীনতার কারণে কোনো দুর্ঘটনা ঘটে, সেক্ষেত্রে দায়ভার আপনার কাঁধে নিন। নিজ দায়িত্বে সমাধানের উপায় খুঁজে বের করুন। ভবিষ্যতে যাতে এমন না হয় তা নিশ্চিত করুন। মনে রাখতে হবে, নিজের ভুল অন্যের ওপর চাপানো যাবে না। অন্যকে দাবার গুটি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না।

অন্যের গোপনীয় বিষয়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন
ফুলটাইম চাকরিজীবীরা সরকারি প্রতিষ্ঠানে সপ্তাহে ৪০ ঘণ্টা একত্রে কাজ করেন। আর বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে অন্তত ৪৮ ঘণ্টা। এক্ষেত্রে ব্যক্তিগত অনেক বিষয় আলোচনা হয়। অন্যের অনুপস্থিতিতে তাঁর ভালো বিষয় আলোচনা করা যায়। তবে গোপনীয় বিষয়ের ব্যাপারে দায়িত্বশীল হোন। অফিসের আলোচনার পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া অনেক বেশি হয়। তাই সতর্কতাই হবে আপনার একমাত্র অবলম্বন।
মনে রাখবেন, আপনার অধিকার বহির্ভূত কোনো আলোচনা কানে আসলে স্থান ত্যাগ করবেন এবং যতটুকু শুনেছেন তা গোপন রাখবেন।

কমনরুমে স্থান নির্ধারণ ও পরিষ্কার রাখুন
অনেক অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সবার জন্য যৌথ লাউঞ্জ, কম্পিউটার ল্যাব বা কমন কিচেন ইত্যাদি রুম থাকে। সেখানে আপনার স্থান নির্ধারণ করুন ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন।
কিছুক্ষণ পর পর পরিষ্কার করলে জায়গাটি সবার জন্য আনন্দদায়ক  হবে। মনে রাখবেন, বিভিন্ন জন বিভিন্ন উদ্দেশ্যে সেই জায়গা ব্যবহার করে। কেউ চ্যাট করা কিংবা কথা বলার জন্য আসতে পারে। তখন আপনি কিছু সময়ের জন্য বেরিয়ে যান এবং সৌজন্যতা প্রদর্শন করুন।

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here