গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতায় পড়ে কী হবে

0
307

আফিয়া ইসলাম রিফা  : গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা প্রতিনিয়তই কিছু প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে থাকে। এই বিষয়ে পড়ে কী করবে? সাংবাদিক হবে? সাংবাদিকতায় অনেক ঝুঁকি রয়েছে। বাংলাদেশে ভালো চাকরি নেই সাংবাদিকদের।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে পড়ে ক্যারিয়ার গড়া সংক্রান্ত বিস্তারিত জানা না থাকায় অনেকেই এসব প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে পারি না। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতার ক্যারিয়ার বেশ উজ্জল। এই বিষয়ে পড়াশুনার মাধ্যমে সৃজনশীল কাজে নিজেকে যুক্ত করার সুযোগ মিলে। অত্যন্ত বৈচিত্র্যপূর্ণ এই বিষয়টি সৃষ্টিশীল কাজে আগ্রহীদের বেশ পছন্দের। নিজের সৃজনশীলতাকে প্রকাশ করার অফুরন্ত সুযোগ রয়েছে এই বিভাগে পড়ার মাধ্যমে। প্রতিষ্ঠিত-স্বীকৃত ও সামনের সারির সংবাদমাধ্যমগুলোতে বরাবরই এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের কদর তুলনামূলকভাবে বেশি।

আমাদের দেশে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সংখ্যা। গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা সহজেই এসব মিডিয়ায় তাদের প্লাটফর্ম তৈরি করার সুযোগ পাচ্ছে। এ বিভাগের বর্তমান ও সাবেক অনেক শিক্ষার্থীই দেশের প্রথম সারির দৈনিক পত্রিকায়, বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে, রেডিও ও টেলিভিশনে ফুলটাইম কিংবা পার্টটাইম কাজ করছে। অনেকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ফিচার-প্রবন্ধ-প্রতিবেদন লিখছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। অডিও-ভিডিও-টেক্সটে চমৎকার কনটেন্ট তৈরি করে নিজেকে পরিচিত করার সুবর্ণ সুযোগ পাচ্ছে।

রেডিওতে নিজের কণ্ঠ শোনা, টিভিতে নিজেকে দেখা, ছাপার হরফে লেখার সাথে নিজের নাম দেখার সুযোগ হতে পারে মানসিক প্রশান্তি লাভ ও আনন্দের অফুরন্ত উৎস। যারা লিখতে ভালোবাসে, মিডিয়ায় ও জনসংযোগে ক্যারিয়ার গড়তে চায় তাদের জন্য গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা হতে পারে অত্যন্ত প্রিয় একটি বিষয়। অন্য বিষয় পড়েও মিডিয়ায় ক্যারিয়ার গড়া গেলেও গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীরা তাদের থেকে অনেকটা এগিয়ে থাকে।

মিডিয়ায় ক্যারিয়ার গড়া ছাড়াও গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ব্যাংক ও ইন্সুরেন্সে গণসংযোগ কর্মকর্তা হতে পারেন। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পাবলিক রিলেশনে অফিসার, বিদেশে স্কলারশিপ ও উচ্চশিক্ষার সুযোগ পেতে পারেন। দেশি-বিদেশি এনজিওতে উচ্চ বেতনে কাজ করতে পারেন। আবার বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতেও ভালো অবস্থানে কাজ করতে পারেন। ভালো ফলাফল করে দেশের বিভিন্ন পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ে শিক্ষকতা করার সুযোগ আছে। এছাড়া ব্যাংকের চাকরি বা বিসিএস ক্যাডার হওয়ার সুযোগ তো রয়েছেই।

ভালো কিছু করার জন্য চাই ইচ্ছাশক্তি আর পরিশ্রম। নিজের স্বপ্নই আপনাকে পথ দেখাবে, নিয়ে যাবে বহুদূর। সেখানে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়টি হতে পারে তোমার স্বপ্ন পূরণের প্লাটফর্ম।

লেখক : শিক্ষার্থী, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]
Previous articleব্যবসায়িক অংশীদারের যেসব গুণ থাকা দরকার
Next articleযেসব চিহ্ন দেখে বুঝবেন- আপনি আপনার জীবনকে নষ্ট করছেন?
শিক্ষা ও ক্যারিয়ার বিষয়ক একটি ম্যাগাজিন হিসেবে ২০১১ সালের জুলাইয়ে যাত্রা শুরু করে ’ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স‘। পরপর চারটি সংখ্যা কাগজে বের হয় এ প্রকাশনাটি। কিন্তু বিভিন্ন কারণে ধারাবাহিকতা রক্ষা সম্ভব হয়নি। শুরু থেকেই অনলাইন ভার্সন ছিল ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সের। সেটির মাধ্যমেই বেঁচে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৭ সালে এটিকে একটি প্রকাশনা সংস্থা হিসেবে চালু করার চেষ্টা করি। বর্তমানে ক্যারিয়ার সহায়ক বিভিন্ন বই প্রকাশ করছি। এছাড়া প্রকাশনার কাজে সব ধরনের সেবা দিচ্ছি। অামরা মূলত ৫টি বিভাগে কাজ করছি। ১. মুদ্রণ ও অনলাইন প্রকাশনা ২. সম্পাদনা ও প্রুফ রিডিং ৩. ক্রিয়েটিভ ডিজাইন ৪. ওয়েব ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ৫. দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here