মাছ শুকানো ব্যবসায়

বর্ষা মৌসুমে বাংলাদেশের হাওড়, বিল, নদী বা সমুদ্রে প্রচুর পরিমাণে মাছ ধরা পড়ে। কাঁচা অবস্থায় সব মাছ বিক্রি করা সম্ভব হয় না। তাই এসব মাছ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি বা উন্নত উপায়ে শুকিয়ে রাখতে পারলে বছরব্যাপী ব্যবসায় করা যায়। সমুদ্র, নদী বা হাওড় অঞ্চলের যে কোনো ব্যক্তি মাছ শুকানোর ব্যবসায়ের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে পারেন।

বাজার সম্ভাবনা
যে সব অঞ্চলে বেশি পরিমাণ মাছ ধরা পড়ে সেখানে মাছ শুকানো ব্যবসা লাভজনক হতে পারে। টাটকা মাছ থেকে শুঁটকি মাছে আমিষের পরিমাণ বেশি থাকে। পরিষ্কার-পরিছন্ন পরিবেশে মাছ শুকিয়ে সংরক্ষণ করে সারা বছর বিক্রি করা সম্ভব। এছাড়া প্যাকেট করে মাছ বিক্রির দোকানে সরবরাহ করা যাবে।

মূলধন
আনুমানিক ১০-১২ হাজার টাকা মূলধন নিয়ে মাছ শুকানোর ব্যবসায় শুরু করা সম্ভব। এ ব্যবসায় শুরু করতে যদি নিজের কাছে প্রয়োজনীয় পুঁজি না থাকে তবে ঋণদানকারী ব্যাংক (সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক) বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (আশা, গ্রামীণ ব্যাংক, ব্র্যাক, প্রশিকা) থেকে শর্ত সাপেক্ষে ঋণ নেয়া যেতে পারে।

মাছ শুকানোর নিয়ম
১ম ধাপ
একটি ছুরি দিয়ে মাছের পেট কেটে নাড়ি-ভুঁড়ি বের করে ফেলুন।
২য় ধাপ
মাছগুলো ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে পলিথিন পেপারের উপর বিছিয়ে ২/৩ দিন কড়া রোদে শুকিয়ে নিন।
৩য় ধাপ
এরপর পুঁটি মাছের নাড়ি-ভুড়ি জ্বাল দিলে যে তেল বের হয় সেটা একটি বড় মাটির হাঁড়ির মধ্যে মাখিয়ে নিন।
৪র্থ ধাপ
এবার শুকানো মাছগুলোতে জ্বালানো তেল মাখিয়ে মাছগুলো ওই মাটির হাঁড়ির মধ্যে রেখে মাটির ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন। মাটিতে গর্ত খুঁড়ে তার মধ্যে হাঁড়িটি রাখুন।
৫ম ধাপ
দুই-আড়াই মাস পর সেগুলো বিক্রির উপযোগী হবে। এবার এগুলো নির্দিষ্ট পরিমাণ মেপে প্যাকেট করে বিক্রির ব্যবস্থা করুন।

সংরক্ষণ
উন্নত উপায়ে মাছ শুকাতে পারলে প্রায় এক বছর পর্যন্ত শুটকি ভালো রাখা সম্ভব।

আনুমানিক আয় ও লাভের পরিমাণ
৭০ কেজি মাছের শুঁটকি করতে মোট খরচ হতে পারে ৫ হাজার ২শ’ টাকার মতো। প্রতি কেজি মাছে সাধারণত ২৫০ গ্রাম শুঁটকি হয়। সে হিসেবে ৭০ কেজি মাছে মোট শুটকি হবে ২০ কেজি। যার বাজার মূল্য প্রায় ৮ হাজার টাকা। অর্থাৎ ৫ হাজার টাকার মাছে ৩ হাজার টাকা লাভ করা সম্ভব।
তবে সময় ও স্থানভেদে এর বেশিও লাভ হতে পারে। মাছ শুকানোর ব্যবসায়ে খুব বেশি স্থায়ী উপকরণের প্রয়োজন হয় না। পুঁজির পরিমাণের উপর নির্ভর করে কাঁচা মাছ কিনে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নভাবে শুকিয়ে সারা বছর ধরে বিক্রি করা যায়।

প্রশিক্ষণ
মাছ শুকানো শেখার জন্য তেমন কোনো প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই। অভিজ্ঞ কোনো ব্যক্তির কাছ থেকে ধারণা নিয়ে মাছ শুকানোর ব্যবসা শুরু করা সম্ভব।

– মো: বাকীবিল্লাহ

About সম্পাদক

মো: বাকীবিল্লাহ। গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে -- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

View all posts by সম্পাদক →

২ Comments on “মাছ শুকানো ব্যবসায়”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *