ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের কোনটিতে কত আসন

0
102
ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের কোনটিতে কত আসন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের স্নাতক (সম্মান) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের বিজ্ঞান, বাণিজ্য, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ১০ জুলাই বিকেল ৪টায় ভর্তি আবেদন শুরু হয় যা চলবে আগামী ২০ আগস্ট পর্যন্ত।

শিক্ষার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে এই আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবে। শিক্ষার্থীরা ভর্তি আবেদনের জন্য নির্ধারিত লিঙ্ক- collegeadmission.eis.du.ac.bd প্রবেশ করে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবে৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশিত ভর্তি বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ঢাবি অধিভুক্ত সরকারি সাতটি কলেজের বিজ্ঞান, বাণিজ্য, কলা ও সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের সংশ্লিষ্ট বিভাগসমূহে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণীর ভর্তির জন্য ২০২০ সালে উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান পর্যায়ে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে।

এক্ষেত্রে ইডেন মহিলা কলেজ ও বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের আসনসমূহ শুধু ছাত্রীদের এবং ঢাকা কলেজের আসনসমূহ শুধু ছাত্রদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। এ ছাড়াও সরকারি তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, এবং সরকারি বাঙলা কলেজে ছাত্র-ছাত্রী উভয়ই ভর্তি হতে পারবে।

উপর্যুক্ত কলেজসমূহের বিজ্ঞান ইউনিটের শাখাসমূহের ভর্তি কার্যক্রম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদ, বাণিজ্য ইউনিটের শাখাসমূহের ভর্তি কার্যক্রম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদ এবং কলা ও সমাজবিজ্ঞান ইউনিটের শাখাসমূহের ভর্তি কার্যক্রম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হবে।

তবে ডিগ্রিসমূহের সনদপত্র প্রদান করা ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য কোনো সুবিধা ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের জন্য প্রযোজ্য নয় বলেও জানানো হয়।

ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত কলেজগুলো হচ্ছে-

১. ঢাকা কলেজ
২. ইডেন মহিলা কলেজ
৩. সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ
৪. কবি নজরুল কলেজ
৫. বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ
৬. মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও
৭. সরকারি তিতুমীর কলেজ।

ইউনিট, কলেজ ও বিভাগভিত্তিক আসন সংখ্যা

সাত কলেজে এবার সর্বমোট আসন সংখ্যা ২৬ হাজার ১৬০টি।

বিজ্ঞান ইউনিটের আসন

বিজ্ঞান ইউনিটের বিভাগুলোতে সাত কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৬ হাজার ৫০০টি।
এর মধ্যে ঢাকা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৯০টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ১২০টি, রসায়ন বিভাগে ১২০টি, গণিত বিভাগে ২১০টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে ১২৫টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ১২৫টি, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগে ১২৫টি, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ১২৫টি ও পরিসংখ্যান বিভাগে ১৪০টি আসন রয়েছে।

ইডেন মহিলা কলেজে সর্বমোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ২২৫টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ১২৫টি, রসায়ন বিভাগে ১২৫টি, গণিত বিভাগে ২৬২টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে ১৫০টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ১৫০টি, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগে ১৬৫টি, পরিসংখ্যান বিভাগে ৫০টি, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ১৪০টি ও গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিভাগে ১২০টি আসন রয়েছে।

সরকারি তিতুমীর কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৫১০টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ২৫০টি, রসায়ন বিভাগে ২৫০টি, গণিত বিভাগে ৩০০টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে ২৫০টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ২৫০টি, পরিসংখ্যান বিভাগে ৭০টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগে ৭০টি, মনোবিজ্ঞান বিভাগের ৭০টি আসন রয়েছে।

সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৭৪০টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ১০০টি, রসায়ন বিভাগে ১২০টি, গণিত বিভাগে ১২০টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে ১০০টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ১০০টি, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগে ১০০টি ও মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগে ১০০টি আসন রয়েছে।

কবি নজরুল সরকারি কলেজে সর্বমোট আসন সংখ্যা ৬৩০টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ১০০টি, রসায়ন বিভাগে ১০০টি, গণিত বিভাগে ১০০টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগে ১০০টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ১০০টি, ভূগোল ও পরিবেশ ১৩০টি আসন রয়েছে।

বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৫৯০টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ৬৫টি, রসায়ন বিভাগে ৮৫টি, গণিত বিভাগে ৬৫টি, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগে ৫৫টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ৮০টি, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগে ৮০টি, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ৮০টি ও গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিভাগে ৮০টি আসন রয়েছে।
সরকারি বাঙলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৭১৫টি। এর মধ্যে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ১০৫টি, রসায়ন বিভাগে ১৩০টি, গণিত বিভাগে ১৬৮টি, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের ১০৫টি, প্রাণিবিদ্যা বিভাগে ১২০টি ও মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগে ৭৫টি আসন রয়েছে।

বাণিজ্য ইউনিটের আসন

বাণিজ্য ইউনিটের বিভাগগুলোতে সাত কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৫ হাজার ৩১০টি।

এর মধ্যে ঢাকা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৬০০টি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৩০০টি ও হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৩০০টি আসন রয়েছে।
ইডেন মহিলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৫৫টি। ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৩২০টি, হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৩৩০টি, মার্কেটিং বিভাগে ২১৫টি ও ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে ১৯০টি আসন রয়েছে।

সরকারি তিতুমীর কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪৬৫টি। ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৪৬২টি, হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৪৭৮টি, মার্কেটিং বিভাগে ২৭০টি ও ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে ২৫৫ টি আসন রয়েছে।

সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৪০০টি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ২০০ ও হিসাববিজ্ঞান ২০০টি আসন রয়েছে।

কবি নজরুল সরকারি কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৭০০টি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৩০০টি, হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৩০০টি, মার্কেটিং বিভাগে ৫০টি ও ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে ৫০টি আসন রয়েছে।

বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১৩০টি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৬৫টি ও হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৬৫টি আসন রয়েছে।

সরকারি বাঙলা কলেজে মোট আসন সংখ্যা ৯৬০টি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ৩৬০টি, হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ৩৬০টি, মার্কেটিং বিভাগে ১২০টি ও ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং ১২০টি আসন রয়েছে।

কলা ও সমাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের আসন

কলা ও সমাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের বিভাগগুলোতে সাত কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১৪ হাজার ৩৫০টি

এর মধ্যে ঢাকা কলেজে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের মোট আসন সংখ্যা ২ হাজার ৪২৫টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ২০০টি, ইংরেজি বিভাগে ২৪০টি, ইতিহাস বিভাগে ২২৫টি, দর্শন বিভাগে ১৮০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ১৩০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ৬১টি, অর্থনীতি বিভাগে ২৩৫টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ২৬৫টি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ২৫০টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ১২৫টি*, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ১২৫টি*, পরিসংখ্যান বিভাগে ১২৫টি* ও গণিত বিভাগে ২১০টি* আসন রয়েছে।

ইডেন মহিলা কলেজে কলা ও সমাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন সংখ্যা ৩ হাজার ১৫৫টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ২৩০টি, ইংরেজি বিভাগে ৩০০টি, ইতিহাস বিভাগে ২৪০টি, দর্শন বিভাগে ১৯০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ২৪০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ১৪০টি, অর্থনীতি বিভাগে ২৯০টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ৩০০টি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ২৮০টি, সমাজকর্ম বিভাগে ২৭০টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ১৬৫টি*, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ১৪০টি*, পরিসংখ্যান বিভাগে ৫০টি*, গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিভাগে ১২০টি* ও গণিত বিভাগে ২০০টি* আসন রয়েছে।

সরকারি তিতুমীর কলেজে কলা ও সমাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন রয়েছে ৩ হাজার ৩০০টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ৩১০ টি, ইংরেজি বিভাগে ৩৬৫টি, ইতিহাস বিভাগে ২১০টি, দর্শন বিভাগে ২৫০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ২৬০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ১৪৫টি, অর্থনীতি বিভাগে ৩৮০টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ৪০০টি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ২৩৫টি, সমাজকর্ম বিভাগে ২৩৫টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ৭০টি*, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ৭০টি*, পরিসংখ্যান ৭০টি* ও গণিত বিভাগে ৩০০টি* আসন রয়েছে।

কবি নজরুল সরকারি কলেজে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন রয়েছে ১ হাজার ৬০০টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ১৫০টি, ইংরেজি বিভাগে ২০০টি, ইতিহাস বিভাগে ১৫০টি, দর্শন বিভাগে ১২০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ১৫০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ২০০টি, অর্থনীতি বিভাগে ১৫০টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ১৫০টি, আরবি বিভাগে ১০০টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ১৩০টি* ও গণিত বিভাগে ১০০টি* আসন রয়েছে।

সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ২৫০টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ১১০টি, ইংরেজি বিভাগে ১১০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ ১২০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ১০০টি, অর্থনীতি বিভাগে ১৫০টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ১৭০টি, সমাজকর্ম বিভাগে ১৭০টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ১০০টি* ও গণিত বিভাগে ১২০টি* আসন রয়েছে।

বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন রয়েছে ১ হাজার ১৮০টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ১০০টি, ইংরেজি বিভাগে ৮০টি, ইতিহাস বিভাগে ৫০টি, দর্শন বিভাগে ৬০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ৬০টি, অর্থনীতি বিভাগে ১৬৫টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ৮৫টি, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ৯০টি, সমাজকর্ম বিভাগ ১৩৫টি, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ৮০টি*, মনোবিজ্ঞান বিভাগে ৮০টি*, গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিভাগে ৮টি* ও গণিত বিভাগে ৬৫টি* আসন রয়েছে।

সরকারি বাঙলা কলেজে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটে মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪৪০টি। এর মধ্যে বাংলা বিভাগে ২২০টি, ইংরেজি বিভাগে ১৮০টি, ইতিহাস বিভাগে ১২০টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ১১০টি, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ১০০টি, অর্থনীতি বিভাগে ১৪০টি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ২৪৫টি, সমাজকর্ম বিভাগে ১৪৫টি, গণিত বিভাগে ১৮০টি* আসন রয়েছে।

বি.দ্র. * চিহ্নিত কলা ও সমাজবিজ্ঞান ইউনিটের বিভাগগুলোর ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির নিয়ম অনুসারে আনুপাতিক হারে আসন বরাদ্দ করা হবে।

সাত কলেজে ভর্তি আবেদনের নূন্যতম যোগ্যতা

২০১৫ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত মাধ্যমিক বা সমমান এবং ২০২০ সনের উচ্চমাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা বিভিন্ন ইউনিটের নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে পারবে কেবল তারাই আবেদন করতে পারবে।

ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীদের ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে বিজ্ঞান ইউনিটের জন্য মাধ্যমিক/সমমান এবং উচ্চ মাধ্যমিক/সমমান পরীক্ষায় (চতুর্থ বিষয়সহ) প্রাপ্ত দুই জিপিএ যোগ করে ন্যূনতম ৭ দশমিক ০, বাণিজ্য ইউনিটের জন্য দুই পরীক্ষার জিপিএ (চতুর্থ বিষয়সহ) যোগ করে যোগফল ন্যূনতম ৬ দশমিক ৫, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের জন্য দুই পরীক্ষার জিপিএ (চতুর্থ বিষয়সহ) যোগ করে যোগফল ন্যূনতম ৬ দশমিক ০।

ভর্তি পরীক্ষার নম্বর ও পাস নম্বর

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ১২০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে পাস নম্বর ৪০ শতাংশ অর্থাৎ ৪৮।

ভর্তি পরীক্ষার ফি ও ফি জমাদান প্রক্রিয়া

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি ৪৫০ টাকা। ফি জমা দেয়া যাবে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের সোনালী সেবা, মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ ও রকেটের মাধ্যমে।

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here