যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বেড়েছে

0
98
যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী শিক্ষার্থী বেড়েছে (বামে লেখক)

খাদিমুল ইসলাম : যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা এ বছরও বেড়েছে| বৃদ্ধির অনুপাতে আমরা সবার উপরে!

১৮ নভেম্বর ওয়াশিংটন ডিসিতে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ওপেন ডোরস ২০১৯’ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। ‘ওপেন ডোরস ২০১৯’ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোতে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে অধ্যয়নরত বাংলাদেশী শিক্ষার্থী সংখ্যা ছিল ৮,২৪৯ জন| যুক্তরাষ্ট্রএ উচ্চশিক্ষার্থে মোট আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের অনুপাতে আমাদের অবস্থান গতবারের মতো এবারও ২৫তম| কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো, বৃদ্ধির হারে এই বছর আমরা সবার চাইতে এগিয়ে, ১০ ভাগ| ২০১৭-১৮ বাংলাদেশী শিক্ষার্থী ছিল ৭৪৯৬| ২০০৯ সালে এ সংখ্যা ছিল মাত্র ২ হাজার ৬১৯ জন। এ হিসাবে গত এক দশকে দেশটিতে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীর সংখ্যা তিনগুণের বেশি বেড়েছে। তার পরও আমরা প্রতিবেশীদের চাইতে এখনো অনেক পেছনে| যেমন ধরেন, যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যাওয়া ভারতীয় শিক্ষার্থীদের সংখ্যা ২,০২,০১৪, আর নেপালি স্টুডেন্ট এর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৩,২২৯| আমার ধারণা এই সংখ্যা আরও বাড়বে|

আমেরিকাতে পড়তে আসার সব চাইতে বড় সুবিধা হলো, আপনি দেশের কোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে, কখন পাস্ করেছেন এইগুলো খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় না| বিষয় হলো আপনার পছন্দের সাবজেক্ট সিলেক্ট করা, আপনি যে বিষয়ে কাজ করছেন বা যে বিষয়ে আগ্রহ আছে এইটাকে গুছিয়ে বলা| আর GRE তে ভালো স্কোর করা| ছাত্র জীবনে কোনো করণে, ভালো রেজাল্ট করতে পারেন নাই, ভালো ইউনিভার্সিটি বা ভালো সাবজেক্টএ পড়তে পারেন নাই তো কি হয়েছে, এখন আর একবার চেষ্টা করে দেখুন| প্রথমবারে GRE তে ভালো স্কোর না হলে, দ্বিতীয়বার দেন, তৃতীয়বার দেন|

আর হ্যা, আর একটি কথা, এখানে যারা পড়তে আসে তাদের মুটামুটি সবাই স্কলারশিপ নিয়ে এসেছে| ফলে টুশন ফী, থাকা খাওয়ার খরচ নিয়ে চিন্তা করার দরকার নাই| অতীত নিয়ে চিন্তিত হবার কারণ নাই| কোন বিষয়ে পড়েছেন, গ্রেড কত পেয়েছিলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যায় নাকি, মাদ্রাসা, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি কিসুই দেখে না এখানে| যদি উচ্চতর লেখাপড়া করতে চান, GRE আর IELTS দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া শুরু করেন|

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]
Previous articleশেখার জাদুকরি পদ্ধতি : ২০ মিনিট সকাল ও রাত
Next articleভলান্টিয়ারিং কেন করবেন? কখন করবেন?
গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here