দক্ষিণ কোরিয়ার ইপিএস লটারি উত্তীর্ণদের তালিকা

ইপিএসে স্বল্প খরচে কোরিয়া এসে কোরিয়ানদের সমান বেতন নিয়ে কাজ করতে পারার সুযোগ থাকায় বাংলাদেশে ইতিমধ্যে প্রচুর জনপ্রিয়তা পেয়েছে। মঙ্গলবার ২০১৮ সালের লটারি উত্তীর্ণদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

অনলাইনে প্রাথমিকভাবে রেজিস্ট্রেশনকৃত ১,৪৪,৭৫৬ (এক লাখ চুয়াল্লিশ হাজার সাতশ ছাপান্ন) জন প্রার্থী হতে এইচআরডি কোরিয়া কর্তৃক লটারির মাধ্যমে চূড়ান্ত রেজিস্ট্রেশনের জন্য পাসপোর্টধারী ৮৪০০ (আট হাজার চারশ) জন এবং অপেক্ষমাণের জন্য ৩,৬০০ (তিন হাজার ছয়শ) জন প্রার্থীকে নির্বাচিত করা হয়েছে।

তালিকাটি দেখুন এখানে ক্লিক করুন।

কোরিয়ান সরকার তাদের শ্রম মন্ত্রণালয়ের এইচআরডি কোরিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশ থেকে শ্রমিক নেয়ার জন্য একটি সিস্টেম চালু করেছে। যার নাম হলো ইপিএস (এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেম)।

এই সিস্টেমের আওতায় ১৬টি দেশ থেকে শ্রমিক নেয়া হচ্ছে। এই দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, মংগোলিয়া, কম্বোডিয়া, কিরজিগিস্তান, মায়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, ফিলিপিন, থাইল্যান্ড, উজবেকিস্তান, ভিয়েতনাম, চীন এবং ইস্ট-তিমুর। ২০০৭ সালে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার জন্য কোরিয়ান সরকার এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে একটি চুক্তি (MOU-Memorendum of Understanding) স্বাক্ষরিত হয়। এই চুক্তি অনুযায়ী ২০০৮ সাল থেকে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগ অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, চুক্তি অনুযায়ী একমাত্র বোয়েসেলই এইচআরডি কোরিয়ার সুনির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরণ করে কর্মী প্রেরণ করতে পারবে। অন্যকোন এজেন্ট বা কোম্পানি বা সংস্থা কোনোভাবেই কোরিয়ায় শ্রমিক প্রেরণ করতে পারবে না।

About সম্পাদক

মো: বাকীবিল্লাহ। গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে -- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

View all posts by সম্পাদক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *