চাকরি হারানোর সুফল…

লি আইয়াকোকা। আমেরিকান ব্যবসায়ী। ফোর্ড মাস্ট্যাং ও ফোর্ড পিন্টো গাড়িগুলোর ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের জন্য বিখ্যাত। আমেরিকান সিটি জার্নাল বিজনেস জার্নাল ‘পোর্টফোলিও ডট কম’-এর বিচারে, আমেরিকার সর্বকালের সেরা সিইওদের মধ্যে ১৮তম। তাই বলে বিখ্যাত ও সফল এই মানুষটির চাকরিজীবন সবসময়ই মধুর ছিল না। তিনি যখন ফোর্ড মটর কোম্পানিতে চাকরি করতেন, তখন কোম্পানিটির ভবিষ্যৎ সিইও ও চেয়ারম্যান হেনরি ফোর্ড জুনিয়র তাকে ভালো চোখে নেননি। বিশেষ করে, ফোর্ড পিন্টো গাড়িটির ডিজাইন নিয়ে দু’জনের মধ্যে দ্বন্দ্ব বেঁধে যায়। লির আইডিয়া মেনে নিতে পারছিলেন না হেনরি। আর লিও নাছোড়বান্দা। এটি তার সম্মানের প্রশ্ন। ফলে, এক কথা, দু’কথায় তুমুল তর্কে জড়িয়ে পড়েন দুজন। আর এর ফল- লিকে কোম্পানি থেকে চাকরিচ্যুত করেন হেনরি।
চাকরি হারানোর পর, ক্ষুব্ধ লির পাশে দাঁড়ায় দেশটির আরেকটি বিখ্যাত অটোমোবাইল কোম্পানি_ ক্রিসলার। বিপদগ্রস্ত এই কোম্পানির হাল ধরার প্রস্তাব রাখা হয় তার কাছে।
১৯৭৮ সালে সিইও এবং এর পাশাপাশি পরের বছর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে, ১৯৯২ সালে অবসরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত, সুদক্ষ হাতে কোম্পানিটিকে দাঁড় করিয়ে দেন তিনি। সরকারের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণ ঋণ নিয়ে, ফোর্ড কোম্পানিতে অবজ্ঞার শিকার হওয়া তার ডোজ ক্যারাভেন ও পলিমাউথ ভয়েজার গাড়ির মতো আইডিয়াগুলোর সফল নির্মাণে সক্ষম হন তিনি ক্রিসলারে; আর হয়ে ওঠেন কিংবদন্তি।

সংগৃহীত

About সম্পাদক

মো: বাকীবিল্লাহ। গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে -- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

View all posts by সম্পাদক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *