আমদানি-রপ্তানি সনদ যেভাবে পাবেন

0
132

বিদেশ থেকে পণ্য আমদানি করে বা বিদেশে পণ্য রপ্তানি করে স্বাবলম্বী হয়েছেন অনেকেই। তবে ইচ্ছা করলেই পণ্য আমদানি বা রপ্তানি করা যায় না। পণ্য আমদানির জন্য দরকার হবে ইমপোর্ট রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট বা আইআরসি আর রপ্তানির জন্য দরকার হবে এক্সপোর্ট রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট বা ইআরসি। কোথা থেকে, কিভাবে, কত টাকা খরচে পাওয়া যাবে আইআরসি এবং ইআরসি।

আমদানি নিবন্ধন সনদপত্র ও রপ্তানি নিবন্ধন সনদপত্র প্রাপ্তির পদ্ধতি সহজ ও স্বচ্ছ। আবেদনপত্রের সঙ্গে নির্দিষ্ট কাগজপত্র দাখিল করলে এক দিনের মধ্যেই পাওয়া যায় আমদানি বা রপ্তানি সনদ।

আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর বা প্রধান আমদানি-রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের ওয়েবসাইট (www.ccie.gov.bd) থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করা যাবে। আবেদনপত্র ঠিকভাবে পূরণ করে নিচের কাগজপত্র সংযুক্ত করতে হবে :
* ট্রেড লাইসেন্স
* চেম্বার অথবা স্বীকৃত ট্রেড অ্যাসোসিয়েশনের বৈধ সদস্যের সনদপত্র
* টিআইএন
* ব্যাংক প্রত্যয়নপত্র
* লিমিটেড কম্পানির ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রার, জয়েন্ট স্টক কম্পানি কর্তৃক অনুমোদিত সংঘ স্মারক ও সংঘবিধি এবং সার্টিফিকেট অব ইন করপোরেশন।

ফি

আমদানিকারকরা বার্ষিক মোট আমদানি মূল্যসীমার ভিত্তিতে ছয় শ্রেণিতে আমদানি নিবন্ধন সনদপত্র পেয়ে থাকেন। এ ক্ষেত্রে প্রাথমিক নিবন্ধন ফি পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা। আর বার্ষিক নবায়ন ফি তিন থেকে ৩০ হাজার টাকা।

অন্যদিকে রপ্তানি নিবন্ধন সনদপত্রের ক্ষেত্রে প্রাথমিক নিবন্ধন ফি সাত থেকে ৪০ হাজার টাকা। আর বার্ষিক নবায়ন ফি পাঁচ থেকে ২০ হাজার টাকা। এ ছাড়া যেকোনো তথ্য বা সহযোগিতার ক্ষেত্রে যোগাযোগ করা যেতে পারে-

প্রধান আমদানি-রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর
১১১-১১৩, মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০
ফোন : ৯৫৫১৫৫৬।
ওয়েব : www.ccie.gov.bd

সূত্র : কালের কণ্ঠ

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]
Previous article৩৫তম বিসিএস পরীক্ষা ৬ ফেব্রুয়ারি
Next articleঅনলাইনে চাকরির খোঁজ
গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here