চাকরিই যখন খুঁজে নেবে আপনাকে

2
255

গতানুগতিক শিক্ষার ধারা পাল্টে যাচ্ছে। একটা সময় ছিল যখন মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ ছিল মেডিক্যাল বা ইঞ্জিনিয়ারিং-এ পড়া। পরবর্তীকালে মেধাবীদের ঝোঁক ছিল বিবিএ বা এমবিএ ডিগ্রির দিকে। কিন্তু সেটিরও গুরুত্ব এখন কমে গেছে। কারণ এসব ডিগ্রি নেওয়ার পর গতানুগতিক চাকরির পেছনেই দৌড়াতে হয়। কিন্তু এসিসিএ ডিগ্রিধারীকে চাকরি খুঁজতে হয় না। চাকরিই তাঁদেরকে খুঁজে নেয়। কারণ ডিগ্রি সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে আপনার সিভি পৌঁছে যাবে বিশ্বের নামিদামী কয়েক হাজার প্রতিষ্ঠানে।
বিস্তারিত জানাচ্ছেন মঞ্জুর আলম

এসিসিএ কি?
হিসাব রক্ষণের ক্ষেত্রে সিএ, আইসিএমএ, সিআইএমএ, সিপিএ প্রভৃতির মতো এসিসিএ কোর্সটিও সমমানের ডিগ্রি। জাতিসংঘ ও ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব অ্যাকাউন্ট্যান্টস এর সদস্য এবং যুক্তরাজ্যের এসিসিএ অ্যাওয়ার্ডিং বোর্ডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির কারণে এসিসিএ সম্পন্নকারীদের বিশ্বব্যাপী চাহিদা ব্যাপক।
এসিসিএ বিশ্বের বৃহত্তম প্রফেশনাল অ্যাকাউন্টিং বডি। এটি ১৯০৪ সালে যুক্তরাজ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে প্রায় ১৭৩টি দেশে এসিসিএর ৪ লাখ ৪ হাজারের মতো ছাত্রছাত্রী ও প্রায় ১ লাখ ৩৫ হাজার মেম্বার আছে। ৮৩টি দেশে এসিসিএর নিজস্ব অফিস রয়েছে এবং বাংলাদেশেও এসিসিএ অফিস খুলেছে। এই কোর্সে মূল বডি একই হওয়ার কারণে ইংল্যান্ডসহ বিশ্বের ১৭৩ দেশে পড়াশোনার জন্য ক্রেডিট ট্রান্সফার করা যায়।
উল্লেখ্য, এমবিএ ডিগ্রি পেতে হলে এইচএসসি পাসের পর বিবিএর ৪ বছর স্নাতক ডিগ্রির পর এমবিএর জন্য ২-৩ বছর অর্থাৎ প্রায় ৬-৭ বছর অপেক্ষা করতে হয়। কিন্তু এইচএসসি বা স্নাতক ডিগ্রির পর যে কোনো শিক্ষার্থী ৩-৪ বছরে আন্তর্জাতিক মানের চার্টার্ড সার্টিফাইড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হতে পারে। একই সঙ্গে পেতে পারেন অক্সফোর্ড ব্রুকস ইউনিভার্সিটির অ্যাপ্লাইড অ্যাকাউন্টিংসে অনার্স ডিগ্রি।

ক্যারিয়ার
কোর্সটি সফলভাবে সম্পন্ন করে বহুজাতিক কোম্পানি বা কর্পোরেট অফিসে উচ্চ বেতনে বিশেষ করে চীফ ফিন্যান্স অফিসার, অডিটর, একাউন্টিং পার্টনার, ফিন্যান্স ডিরেক্টর, সিনিয়র ইন্টারনাল অডিটর, বিজনেস এডভাইসর প্রভৃতি পদে চাকরি করা যাবে।

যারা ভর্তি হতে পারবেন
যারা ও-এ লেভেল বা স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন, তারা সরাসরি এসিসিএ কোর্সে ভর্তি হতে পারেন। যারা মাধ্যমিক বা উচ্চমাধ্যমিক পাস করেছেন তাদেরকে সিএটি নামে একটি কোর্স করে নিতে হবে। তবে এসিসিএর জন্য সর্বনিম্ন বয়স ২১ বছর এবং সিএটির জন্য ১৬ বছর হতে হবে। সিএটি সফলভাবে সম্পন্নকারীর এসিসিএ’র তিনটি বিষয় এফ-১, এফ-২, এফ-৩ শেষ হয়ে যায়। পরবর্তীতে তারা এসিসিএ কোর্সে ভর্তি হতে পারে।
চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে এসিসিএ ভর্তি পদ্ধতিতে পরিবর্তন এসেছে। এখন এসিসিএ শিক্ষা সবার জন্য উন্মুক্ত। যে  কেউ চাইলেই ফাউন্ডেশন ইন অ্যাকাউন্ট্যান্সিতে (এফআইএ) ভর্তি হতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সরাসরি সিএটি ভর্তির পরিবর্তে এফআইএ বা এসিসিএতে ভর্তি হতে হবে। এফআইএতে সাতটি কোর্স এবং সব পরীক্ষা কম্পিউটার বেইজড।

ভর্তি পদ্ধতি
সাধারণত সারা বছরই ভর্তি হওয়া যায়। তবে ডিসেম্বরে পরীক্ষা দিতে চাইলে ভর্তি হতে হবে ১৫ আগস্টের মধ্যে। আর জুনে পরীক্ষা দিতে চাইলে ভর্তি ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে।
এসিসিএ’র বাংলাদেশ অফিস-
গুলশান ভবন (চতুর্থ তলা)
বীর উত্তম এ কে খন্দকার সড়ক
৩৫৫ মহাখালী, গুলশান, ঢাকা
এছাড়া ব্রিটিশ কাউন্সিলের মাধ্যমেও ভর্তি হওয়া যাবে।

সময় ও খরচ
এসিসিএ তে মোট ১৪টি বিষয় (১৪০০ নম্বরের) পড়ানো হয়। এখানে একেকবার চারটি বিষয় পরীক্ষা দেওয়া যায়। বছরে চারটি বিষয় পাস করলে সময় লাগবে সাড়ে তিন বছর।
এসিসিএ পার্ট-১ পড়তে খরচ হবে দেড় থেকে দুই লাখ টাকা।
আর পার্ট-২ সম্পন্ন করতে খরচ হয় এক থেকে দেড় লাখ টাকা। এসিসিএ পার্ট-২ সম্পন্ন করলে এবং সাথে একটি থিসিস জমা দিয়ে ইংল্যান্ডের অক্সফোর্ড ব্রুক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাপ্লাইড অ্যাকাউন্টিং-এ অনার্স ডিগ্রি লাভ করা যায়। এসিসিএ পার্ট-৩ বাংলাদেশ বা বাইরে সম্পন্ন করা যাবে।

কোথায় পড়বেন
ব্রিটিশ কাউন্সিল এর অধীনে বাংলাদেশে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান এসিসিএ কোর্সটি পড়িয়ে থাকে। নিচে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা দেওয়া হল।  আপনার সুবিধা অনুযায়ী পছন্দমত প্রতিষ্ঠান থেকে এসিসিএ কোর্সটি করে নিতে পারেন।
ড্যাফোডিল ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি
বাড়ি-০৭,  রোড-১৪ (নতুন)
ধানমন্ডি আ/এ, ঢাকা ।
ফোন : ৯১১৭২০৫, ০১৭১৩৪৯৩১৬৩
এলসিবিএস ঢাকা
বাড়ি নং : ৩৯/বি
রোড নং : ১৪/এ (নতুন), পুরাতন-২৫
সাত মসজিদ রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা-১২০৯
ফোন : ৮৮-০২-৮১৯১৩৯৩
০১৭৪৬-৩৮৮৬৪৪, ০১৭৪৬-৩৮৮৬৪৫
www.lcbsdhaka.ie
সাইফুর’স ইউনিভার্সিটি কলেজ
৬৯/বি পান্থপথ, ঢাকা
ফোন : ০১৯১২১০১৪৭৩, ০১১৯৯৯৮২২০২
চার্টার্ড ইউনিভার্সিটি কলেজ
বাড়ি : ৫১, রোড : ১০/এ
ধানমন্ডি, ঢাকা
আরো জানতে লগ অন করতে পারে নিচের ওয়েবসাইটে- www.globalacca.com

ঘোষণা

আপনিও লিখুন


প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্সে। শিক্ষা, ক্যারিয়ার বা পেশা সম্পর্কে যে কোনো লেখা আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিন। পাঠাতে পারেন অনুবাদ লেখাও। তবে সেক্ষেত্রে মূল উৎসটি অবশ্যই উল্লেখ করুন লেখার শেষে। লেখা পাঠাতে পারেন ইমেইলে অথবা ফেসবুক ইনবক্সে। ইমেইল : [email protected]
Previous articleপ্রিন্ট মিডিয়ায় চ্যালেঞ্জিং ৫ ক্যারিয়ার
Next articleশাবি’র ভর্তি পরীক্ষা ২৯ অক্টোবর
গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলার পাথরঘাটাতে। থাকেন ঢাকার সাভারে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে- সরকার ও রাজনীতি বিভাগ থেকে অনার্স, মাস্টার্স । পরে এলএলবি করেছেন একটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাঁর লেখালেখি মূলত: ক্যারিয়ার বিষয়ে। তারই সূত্র ধরে সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স নামে এই ম্যাগাজিনটি। এছাড়া জিটিএফসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত। ভিডিও তৈরি ও সম্পাদনা, ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন এবং পাবলিক লেকচারের প্রতি আগ্রহ তাঁর।

2 COMMENTS

  1. আসসালামু আলাইকুম…
    সম্পাদক মহোদয়! আমি এই সাইটের কিছু লেখা আমার ব্লগ সাইটে শেয়ার করতে চাই। এ ব্যাপারে কি কোনো সমস্যা আছে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here